দূর্যোগকালীন ঈদ!

কখনো বন্যা, কখনো করোনা। সকল দূর্যোগের উপর দাড়িয়েই সব সময় হাসিমুখে জানাতে হয় ঈদের শুভেচ্ছা। এবার-ও তার ব্যাতিক্রম নয়। দেশের বাইরে এসেও দূর্যোগের সাথে যুদ্ধ করছি। এবারের দূর্যোগটা অনেক ভয়াবহ। জানিনা আগামীতে কেমন দিন আসবে। আনন্দ গুলো ধীরে ধীরে আমাদের থেকে সরে যাচ্ছে। এগুলো হয়তো আমাদেরই কৃতকর্মের ফল।

কখনো বানের পানির সাথে, কখনো সিডর, সাইক্লোনের সাথে, কখনো মহামারী অদৃশ্য কোন এক ভাইরাসের সাথে! এভাবেই কি বছরের পর বছর চলবে? হয়তো সব কিছুই একটা পরীক্ষা। ধৈর্যের কঠিন পরীক্ষা।

প্রত্যেক ঈদে কিছুনা কিছু মানুষ সরাসরি মৃত্যুর সাথে লড়াই করছে। একজন ছোটখাটো সংবাদকর্মী হিসেবে অনেক ঈদ সংবাদ সংগ্রহ করার কাজে কাটিয়েছি। এখনো মনে আছে ২০১৮ সালের ঈদের কথা। স্বচক্ষে দেখেছিলাম মানুষের চোখেরজলে একাকার হয়ে যাওয়া ঈদ। সেদিন নিউজ কাভারেজ করতে গিয়ে সবকিছু ফেলে রেখে কিছু প্রাণকে নৌকায় তুলতে হয়েছিল।

আমার এখনো প্রাণ কাদে টিভি, পেপার পত্রিকায় দেখা সেই নিউজ গুলোর কথা মনে হলে। গাজা, ফিলিস্তিন, সিরিয়া, ইয়েমেনের কান্নার ঈদ। বিধস্ত ঈদগাহ আর ঘরবাড়ি! আহা কতো প্রাণ ঝরে গিয়েছে রাস্তায়। যে মসজিদের মিম্বর থেকে মুয়াজ্জিনের সুরেলা কণ্ঠে আজানের সুর ভেসে আসতো সেই মসজিদের মিম্বরে আগুনের ধূয়া উড়তে দেখেছি। আমি দেখেছি বোমা আর রক্তের মহা তান্ডবের ঈদ। আমি সেই ঈদ গুলো এখনো ভুলতে পারিনা।

ক্ষতবিক্ষত হৃদয় গুলো এখন ঈদ কি আসলে বুঝতে চায় না। সেই কয়েক বছর আগে থেকে হয়তো ঈদের আনন্দ শেষ করে এসেছে তারা। নতুন করে ঈদ নিয়ে আর তাদের নেই কোন মাথা ব্যথা। রাস্তার মোড়ে মোড়ে এখন হয়তো গাছ গুলোকে আর কষ্ট দেওয়া হয়না। দেশে খবর নিয়ে জেনেছি, ঈদ উপলক্ষে ব্যানার, ফেষ্টুন, বিলবোর্ড এখন আর তেমন নজরে পড়ছে না। সবাই বেচে থাকার জন্য লড়ছে। আসলে যাদের শুভেচ্ছা জানাবেন তারাই যদি অনাহারে মরে যায় তাইলে এই ব্যানার পোস্টার দিয়ে কি করবেন? যাক এই একটি কারনে হয়তো গাছগুলো পেরেকের হত্যাচার থেকে মুক্ত হয়েছে।

দেশের ৭ কোটি মানুষ এখনো দুমুঠো ভাত খেয়ে বাচতে চায়। চায় অধিকার। বেচে থাকার মৌলিক অধিকার৷ যেকোন কঠিন পরিস্থিতিতে কিছু মানুষ পাশে দাড়াবে সেই আশায় বসে আছে তারা এখনো।

ম্যাসেঞ্জারে আপনাদের পাঠানো সবার শুভেচ্ছা পেয়ে আমরা অত্যন্ত খুশি। আরও খুশি হবো ঈদের দিন ঘরে সালাত আদায় করুন। দূরত্ব বজায় রাখুন। নিজে বাচুন অন্যকে বাচতে দিন। সরকারের দেওয়া সকল পরামর্শ গ্রহণ করুন। আল্লাহর উপর পূর্ণ আস্তা ও বিশ্বাস রাখুন। প্রতিবেশী, হতদরিদ্র, ও সমাজের বঞ্চিত প্রাণ গুলোকে নিয়ে ঈদ পালন করার চেষ্টা করুন। -ঈদ মোবারক।

এশিয়াবিডি/সাইফ/মুবিন

লেখাটি শেয়ার করুন

Others Post

Sponsor

আরও লেখা পড়ুন